ইন্টারনেটের যুগে সব জায়গাতেই প্রশ্নফাঁস হয়: শিক্ষামন্ত্রী

আমির হোসেন | নিজস্ব প্রতিবেদক : জুন ২৮, ২০১৮

বিভিন্ন দেশের প্রশ্নফাঁস হয়। ভারতের দিল্লিতে কেন্দ্রীয়ভাবে এবং রাজ্যভিত্তিক কিছু পরীক্ষা হয়। এবার রাজ্যের কিছু পরীক্ষার প্রশ্নফাঁস হয়েছে। সিঙ্গাপুরেও প্রশ্নফাঁস হয়েছে। ইংল্যান্ডেও প্রশ্নফাঁস হয়েছে। ইন্টারনেটের যুগে এগুলো সব জায়গাতেই হয়। আজ (বৃহস্পতিবার)জাতীয় সংসদে সাংসদের বক্তব্যে প্রেক্ষিতে এ কথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, এবার এসএসসির প্রশ্নফাঁস নিয়ে অনেক কথা হয়েছে। এমনকি মিডিয়াতেও ব্যাপক প্রচার হয়েছে। এসব অভিযোগ আমলে নিয়ে পাঁচটি মন্ত্রণালয় ও সব ধরনের নিরাপত্তা সংস্থার মাধ্যমে তদন্ত কমিটি করেছিলাম। তিনি বলেন, তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে বেরিয়ে এসেছে, পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট পর কয়েকটি প্রশ্ন আংশিক ফাঁস হয়েছে। সেটি ছিল ‘ক’ সেটের ৩০ নম্বরের এমসিকিউ প্রশ্ন। আমরা গোপন রাখিনি, তদন্ত করে প্রকাশ করেছি।

এবছর বাজেটে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জন্য ১৮ হাজার ১৬৬ কোটি ৩১ লাখ টাকা বরাদ্দ রাখা হয়। এর বিরোধীতা করে কয়েকজন সাংসদ ছাঁটাই প্রস্তাব দেন। ফখরুল ইমাম এ বরাদ্দের বিরোধিতা করে বলেন, শিক্ষাখাতে বরাদ্দ বাড়ানো দরকার। কিন্তু এ মন্ত্রণালয়ে জিপিএ-৫ কেনা-বেচার ঘটনা ঘটে। রুস্তম আলী ফরাজী বলেন, শিক্ষকরা এমপিওভুক্তির জন্য রাস্তায় অনশন করছেন। তাদের বিষয়টি বিবেচনা করে বরাদ্দ বাড়ানো উচিত। তবে এ সমস্যার সমাধান না করে বরাদ্দ বাড়িয়ে কি হবে?

জবাবে নাহিদ বলেন, জিপিএ-৫ টাকায় বিক্রি হয়। এ ধরনের একটা খবর একটা টিভিতে প্রচার হয়েছে। তবে এটা প্রমাণিত হয়নি। এরপরও আমরা বোর্ড থেকে বুয়েটের একটি তদন্ত কমিটি করে দিয়েছি। এ ছাড়া মন্ত্রণালয় থেকে আরেকটি কমিটি করেছি। অভিযোগ অস্বীকার করছি না। তবে প্রতিবেদন এলে বলতে পারবো। এমপিওভুক্তির বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, অর্থ পেলে আমরা পর্যালোচনা করে এমপিওভুক্তির কাজ অব্যাহত রাখতে চেষ্টা করব।

তথ্য:

বিভাগ:

প্রকাশ: জুন ২৮, ২০১৮

সর্বমোট পড়েছেন: 307 জন

মন্তব্য: 0 টি

সংশ্লিষ্ট সংবাদ