একটি সেতু কিছু কথা।।

প্রবাসীরদিগন্ত ডেস্ক : মার্চ ২৪, ২০১৮

উন্নত বিশ্বে  একটি পরিচিত শব্দ টোল আদায়  , যেমন মালয়েশিয়াতে প্রত্যেকটা বড় বড় সড়কে বা ফ্লাইওভারে টোল বসানো হয়।

মালয়েশিয়াতে আমরা যেমনটি দেখি হাইওয়ে রাস্তায় টোল বসানো হয়, এবং নির্ধারিত কয়েকটি কোম্পানি এই টোল আদায় করে এতে কোটি কোটি টাকা সরকারি রাজস্ব আয় হয়। তবে নির্ধারিত সময়ের  পর  আর টোল থাকেনা। মালয়েশিয়াতে সড়ক ফ্লাইওভার বেসরকারি কোম্পানিগুলো তাদের ব্যয়ে তারা নির্মাণ করে, টোলের মাধ্যমে তাদের সে অর্থ তারা উঠিয়ে নেয় নির্ধারিত সময়ে, এর মধ্যে ঐ সড়ক ফ্লাইওভারগুলো  রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব থাকে ওই কোম্পানিগুলোর, এই টোল আদায় নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে কোন  ক্ষোভ থাকেনা, সম্পূর্ণ ভিন্ন চিত্র আমাদের দেশে চাঁদপুর লক্ষ্মীপুর গুরুত্বপূর্ণ  সড়কে ২৪৮ মিটার দৈর্ঘ্যের ১৮ কোটি ১২ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত চাঁদপুর সেতু ২০০৪ সালে  তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া সেতুটি উদ্বোধন করেন, দীর্ঘ ১৪ বছর পেরিয়ে গেলেও, নির্ধারিত ব্যয়ের ছেয়ে  কয়েকগুণ বেশি টাকা আদায় করার পর এখনো বন্ধ হয়নি এই সেতুটির টোল আদায় ,পাশাপাশি কয়েকটি সেতুর টোল আদায় বন্ধ হলেও এই সেতুটির টোল আদায় কবে বন্ধ হবে তা নির্দিষ্ট কেউ বলতে পারছেনা, টোল আদায় বন্ধের দাবিতে চাঁদপুর-৪ ফরিদগঞ্জে সংসদ সদস্য ড. মোহাম্মদ শামছুল হক ভূঁইয়া জাতীয় সংসদে টোল আদায় বন্ধের  দাবি তোলেন, এবং বেশ কয়েক বার মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করা হয়।

মালয়েশিয়ায় যেখানে হাজার কোটি টাকা ব্যয় ও এত বছর টোল আদায় করেনা । আর কোন নিয়ম কানুন না মেনে রাজনৈতিক প্রভাব  খাটিয়ে বছরের পর বছর টোল আদায়ের নামে নিরবে চাঁদাবাজি করে যাচ্ছে একটি মহল, দেখার কি কেউ নেই? 

বিশেষ করে ফরিদগঞ্জ ,রায়পুর, লক্ষীপুরের কয়েক লক্ষ মানুষ এই রুটে প্রতিদিন যাতায়াত করে , এই টোলের জন্যে নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে ও গুনতে হয় বাড়তি ভাড়া। আগামী পহেলা এপ্রিল মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চাঁদপুর আসছেন , মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে এই অঞ্চলের মানুষের অন্যতম একটি দাবি হতে পারে চাঁদপুর সেতুর টোল আদায় বন্ধ করা। 

 

তথ্য:

বিভাগ:

প্রকাশ: মার্চ ২৪, ২০১৮

প্রতিবেদক:

সর্বমোট পড়েছেন: 548 জন

মন্তব্য: 0 টি