কাল কেসিসি নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত খুলনা

শেখ সেকেন্দার আলী | নিজস্ব প্রতিবেদক : মে ১৪, ২০১৮

খুলনা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনের জন্য সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন। আগামীকাল মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। একই সাথে বহিরাগতদের গত শনিবার রাত ১২টার মধ্যে সিটি এলাকার ত্যাগ করার জন্য মাইকিং করা হয়েছে। এদিকে নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে প্রস্তুত নির্বাচন কমিশন (ইসি)।এ লক্ষে গতকাল থেকে মাঠে নেমেছে বিজিবি। নির্বাচনে সাড়ে ৯ হাজার পুলিশ, বিজিবি, এপি ব্যাটেলিয়ান, আনসার-ভিডিপি সদস্য দায়িত্ব পালন করবে। পাশাপাশি থাকছে র‌্যাবের ৩২টি টহল টিম এবং ৪টি স্টাইকিং ফোর্স। একই সাথে নির্বাচনের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা ও সিটি নির্বাচনের আচরণ বিধিমালা প্রতিপালনের লক্ষে গতকাল সকাল থেকে দায়িত্ব পালন করছে ৩১ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। তারা কেন্দ্র ভিত্তিক নিজ নিজ অধীক্ষেত্রে দায়িত্বে রয়েছেন।খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের নিরাপত্তায় ১৬ প্লাটুন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। গতকাল রোববার সকাল ৮টা থেকে বিজিবি সদস্যরা নগরীর বিভিন্ন এলাকায় টহলসহ নিরাপত্তার সার্বিক দায়িত্ব পালন শুরু করেছেন। বিষয়টি বিজিবি খুলনা সেক্টরের টুআইসি মেজর হান্নান খান নিশ্চিত করেছেন। মেজর হান্নান খান জানান, নির্বাচন কমিশনের চাহিদা অনুযায়ী ১৬ প্লাটুন অর্থাৎ ৬৪০ জন বিজিবি সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। বিজিবি সদস্যরা টহল ও স্টাইকিং ফোর্স হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তারা নগরীর বিভিন্ন এলাকায় অবস্থান নিয়ে নির্বাচনের সার্বিক নিরাপত্তার দিকে সতর্ক নজর রাখছেন।

কেসিসি নির্বাচনের রিটার্র্নিং কর্মকর্তা মোঃ ইউনুচ আলী জানান, সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন কমিশনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। ইতোমধ্যে নির্বাচনের ভোটগ্রহণের জন্য ব্যালট পেপার, সিল, কালিসহ নির্বাচনী মালামাল খুলনায় এসেছে। এসব মালামাল বিভাগীয় মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্সে রাখা হয়েছে। এই নির্বাচনে ১ হাজার ৮১০টি ব্যালট বাক্স প্রয়োজন হবে। আজ সোমবার সকাল ১০টা থেকে স্ব স্ব কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসারদের এসব মালামাল বুঝিয়ে দেওয়া হবে। তিনি আরো জানান, গতকাল রবিবার বিকেল থেকে ২২ সদস্যের নির্বাচন পর্যবেক্ষক টিম দায়িত্ব পালন করছে। তারা নির্বাচনের সকল বিষয় পর্যবেক্ষণ করবেন। একই সাথে গত শনিবার থেকে ১৬ মে পর্যন্ত ৩১ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করবেন। তিনি বলেন, গতকাল রবিবার দিবাগত রাত ১২টার পর থেকে প্রচার-প্রচারণা শেষ হয়েছে। এরপর কোনো প্রার্থী আর প্রচার-প্রচারণা করতে পারবেন না। এছাড়া শনিবার রাত ১২টার মধ্যে বহিরাগতদের সিটি থেকে চলে যাওয়ার জন্য মাইকিং করা হয়েছে।তিনি বলেন, এ নির্বাচনে ২টি কেন্দ্রে ইভিএমে ভোটগ্রহণ হবে। এ দু’টি কেন্দ্রে আগামীকাল সোমবার সকাল ১০টা হতে দুপুর ২টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে ইভিএম’র মাধ্যমে মক ভোটিং কার্যক্রম। এছাড়া তিনটি কেন্দ্রে সিসি ক্যামেরা স্থাপনের কাজ চলছে। সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, নির্বাচনে ভোটগ্রহণ কর্মকর্তা রয়েছেন ৪ হাজার ৯৭২ জন। এ নির্বাচনে ২৮৯টি ভোট কেন্দ্র। এর মধ্যে দুটি ভোটকেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার করা হবে। এ দুটি কেন্দ্রের ১০টি বুথে ইভিএমে ভোট দেওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন দুই হাজার ৯৭৮ ভোটার।খুলনা মহানগর পুলিশের (কেএমপি) মুখপাত্র সহকারী পুলিশ কমিশনার সোনালী সেন বলেন, নির্বাচনে ২৮৯টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ২৩৪টি কেন্দ্রকে অতি গুরুত্বপূর্ণ বা ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। ভোটের দিন পুলিশ, র‌্যাব, আনসার ও বিজিবি, এপিপিএনের প্রায় ১০ হাজার সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। র‌্যাব-৬’র অধিনায়ক খোন্দকার রফিকুল ইসলাম জানান, নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা মোতাবেক নির্বাচনে র‌্যাবের ৩২টি টিম দায়িত্ব পালন করবে। যার প্রতিটি টিমে ৮জন সদস্য থাকবে। এছাড়া ৪টি স্টাইকিং ফোর্স থাকবে। এ টিমে ১০ জন করে থাকবে।

তথ্য:

বিভাগ:

প্রকাশ: মে ১৪, ২০১৮

সর্বমোট পড়েছেন: 398 জন

মন্তব্য: 0 টি

সংশ্লিষ্ট সংবাদ