বাংলাদেশ দূতাবাস ও প্রবাসীদের যৌথ উদ্যোগে "মালয়েশিয়ায় ইতিহাস রচনাকারি প্রমিলাদের সংবর্ধনা প্রদান"

আহমাদুল কবির | বিশেষ প্রতিবেদক : জুন ১০, ২০১৮

মালয়েশিয়ায় ইতিহাস রচনাকারি প্রমিলাদের সংবর্ধনা প্রদান করেছে বাংলাদেশ দূতাবাস ও প্রবাসী কমিউনিটি। কুয়ালালামপুর হোটেল ইস্তানার বলরোমে মালয়েশিয়া সময় রাত সাড়ে ১০ টায় যৌথ উদ্যোগে এ সংবর্ধনা প্রদান করা হয়।
রাষ্ট্রদূত মহ:শহীদুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও দূতাবাসের শ্রম কাউন্সেলর মো:সায়েদুল ইসলামের প্রাণবন্ত উপস্থাপনায় সংবর্ধনা অনুষ্টানে রাষ্ট্রদূতের বক্তব্য বলেন, দুর্দান্ত খেলেই সেই স্বপ্ন পূরণ করল বাংলাদেশের নারী দল।  
তিনি বলেন, নিজের চোখকেও যেন বিশ্বাস করা কঠিন। এশিয়া কাপে যাদের সঙ্গে কোনো দলই পেরে উঠে না, যে দল এই টুর্নামেন্টের ছয় আসরের সব কটিতেই অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন; সেই ভারতকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশের মেয়েরা। এ যেন প্রত্যাশার চাইতেও বেশি কিছু। আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যেমন দেশ এগিয়ে যাচ্ছে তেমনি খেধূলায় ও আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। মালয়েশিয়ার মাঠে আবারও ইতিহাস রচনা করল আমাদের নারিরা। রাষ্ট্রদূত তার পক্ষ থেকে এবং দূতাবাসের পক্ষথেকে অভিনন্দন জানান।


প্রবাসী কমিউনিটি নেতা মকবুল হোসেন মুকুল তার বক্তব্য বলেন, এ বিজয় আমাদের দেশের বিজয়। এ বিজয় আমাদের প্রবাসীদের বিজয়। মুকুল প্রবাসীদের পক্ষথেকে নারি ক্রিকেটারদের অভিনন্দন জানান।
দলের এমন পারফরম্যান্সে স্বভাবতই ভীষণ খুশি নারী দলের অধিনায়ক সালমা খাতুন। দেশের সমর্থকদেরও প্রবাসীদের ধন্যবাদ জানাতে ভুল করেননি তিনি। এত অল্প সময়ের মধ্যে এ আয়োজনে সালমা খুশি। সালমা বলেন,শ্বাসরুদ্ধকর এক ফাইনাল। শেষ বলে দরকার ২ রান। জাহানারা আর সালমা দু’বারের জন্য সফলভাবে জায়গা পরিবর্তন করতেই বিজয়ের উল্লাসে মেতে উঠলো পুরো বাংলাদেশ। এশিয়া কাপের ইতিহাসে প্রথম দল হিসেবে ভারতকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশের মেয়েরা। 


নারি এশিয়া কাপে ছয়বারের চ্যাম্পিয়ন ভারতকে গ্রুপপর্বেও হারিয়েছিল বাংলাদেশের মেয়েরা। সেই ভারতকেই ফাইনালে হারিয়ে ইতিহাস গড়ার অনভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে অধিনায়ক সালমা খাতুন বলেন, ‘প্রথমবারের মতো এশিয়া জিততে পেরে আমি খুবই খুশি। আমাদের আত্মবিশ্বাস ছিল, ভারতকে প্রথম ম্যাচে হারানোর পর। হারানোর অনেক কিছু ছিল তাদের, আমাদের ছিল অনেক কিছু অর্জনের। বাংলাদেশের সমর্থকদের ধন্যবাদ জানাতে চাই। প্রথম ম্যাচে আমরা তেমন ভালো করিনি, তবে পরে দারুণভাবে ফিরেছি।’সংবর্ধনা অনুষ্টানে উপস্থিত ছিলেন, দূতাবাসের মিনিষ্টার রইছ হাসান সারোয়ার, প্রথম সচিব শ্রম মো: হেদায়েতুল ইসলাম মন্ডল, পাসপোর্ট ও ভিসা শাখার প্রথম সচিব মো: মশিউর রহমান তালুকদার, প্রথম সচিব বাণিজ্য মো: রাজিবুল আহসান, প্রথম সচিব মো মাসুদ হোসেইন, তাহমিনা ইয়াসমিন, শ্রম শাখার প্রথম সচিব মো: ফরিদ আহমদ সহ দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারি বৃন্দ।
এ ছাড়া কমিউনিটির মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, কমিউনিটি নেতা ওয়াহিদুর রহমান অহিদ, আব্দুল করিম, রাশেদ বাদল, মানরুজ্জামান মনির,ড:শংকর চন্দ্র পোদ্দার, প্রকৌশলী খোকন, দাতু আক্তার হোসেন সহ ৬ শতাধিক প্রবাসী।
সংবর্ধনা অনুষ্টানে দূতাবাস ও কমিউনিটির পক্ষ থেকে প্রমীলাদের উপহার সামগ্রী প্রদান করা হয়।

তথ্য:

বিভাগ:

প্রকাশ: জুন ১০, ২০১৮

প্রতিবেদক: আহমাদুল কবির

সর্বমোট পড়েছেন: 852 জন

মন্তব্য: 0 টি