বিদ্বেষ আর বৈষম্যের বিরুদ্ধে লড়বো: ওয়াশিংটনে ড. নীনা

প্রবাসীর দিগন্ত | প্রবাসীরদিগন্ত ডেস্ক : মার্চ ৬, ২০১৮

পেনসিলভেনিয়া অঙ্গরাজ্যের লেফটেন্যান্ট গভর্নর পদপ্রার্থী বাংলাদেশি-আমেরিকান ড. নীনা আহমেদ বলেছেন, কর্মস্থলে নারী শ্রমিকের ওপর যৌন হামলা বন্ধ, অভিবাসীদের অধিকার ও মর্যাদা সমুন্নত রাখতে তিনি দৃঢ় অঙ্গীকারাবদ্ধ। একইসঙ্গে অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইন অবিলম্বে তৈরির পক্ষে জনমত সোচ্চার হওয়ার আগ্রহও ব্যক্ত করেন তিনি। 

স্কুলের শিক্ষার্থীরা যাতে নিরাপদে থাকে, সে বিষয়টি নিশ্চিত করবেন বলে প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন নীনা। শুধু তাই নয়, খেটে খাওয়া মানুষদের চিকিৎসা-সেবা মজবুত করতেও অঙ্গরাজ্য প্রশাসনের সকলকে উদ্বুদ্ধ করতে অঙ্গিকারাবদ্ধ তিনি। 

শনিবার যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসি সংলগ্ন ভার্জিনিয়ার স্প্রিংফিল্ডে  ড. নীনার নির্বাচনী তহবিল সংগ্রহের এ অনুষ্ঠানে বৃহত্তর ওয়াশিংটন ডিসি এলাকার সর্বস্তরের প্রবাসীরা অংশ নেন। দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া সত্বেও লোকসমাগম ঘটায় ড. নীনাও সকলের প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা জানান।

অনুষ্ঠানটির আয়োজক ছিলেন যৌথভাবে পিপল এন টেকের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও প্রকৌশলী আবুবকর হানিফ এবং আইটি স্পেশালিস্ট রেদওয়ান চৌধুরী । 


ড. নীনা বলেন, মূলধারায় আরোহনে চাই সর্বসাধারণের মৌলিক সমস্যার গভীরে পৌঁছা। বাংলাদেশিরা কী ধরনের সমস্যায় রয়েছেন, প্রতিবেশী ভিনদেশীদের কী ধরনের পরিস্থিতির শিকার হতে হচ্ছে-এসব জানতে হবে সকলের সাথে সুসম্পর্ক রচনার মধ্য দিয়ে। ২৫ বছরেরও অধিক সময় যাবত আমি সে কাজগুলোই করছি।

উল্লেখ্য, এর আগে তিনি মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদে নির্বাচন করার ঘোষণা দিয়েছিলেন। কংগ্রেসানাল জেলায় নির্বাচনী মানচিত্রে পরিবর্তন আসায় তিনি সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে লেফটেন্যান্ট গর্ভনর পদে ডেমক্র্যাটিক পার্টির মনোনয়নের দৌড়ে রয়েছেন।

ফিলাডেলফিয়া নগরীর ডেপুটি মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করার আগে থেকেই নাগরিক আন্দোলনের মূলধারার নেতা হিসেবে নীনা আহমেদ সবার নজরে আসেন। সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার উপদেষ্টা হিসেবেও তিনি দায়িত্ব পালন করেছেন। 

ড. নীনা বলেন, বিদ্বেষ আর বৈষম্যের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাবো লে. গভর্ণর হতে পারলে। তিনি বলেন, গত ২৫ বছর থেকে আমি পেনসিলভেনিয়াতে অন্যায়, অবিচার আর বিদ্বেষের বিরুদ্ধে লড়াই করছি। আমি মনে করেছি, এসবের অবসানের জন্য আরও প্রগতিশীল নেতৃত্ব সরকারে যাওয়া উচিত। ড. নীনা সকলের প্রতি বিশেষ অনুরোধ রেখে বলেন, বহুজাতিক এই সমাজে শুধু নিজের কম্যুনিটির মধ্যে বিচরণ করলে চলবে না, সকল ভাষা-বর্ণ আর গোত্রের মানুষের সাথে মিশে যেতে হবে। 

এ অনুষ্ঠানের উপস্থাপনা করেন এন্থনি পিযুষ গোমেজ ও আনিকা রহমান।
কেন সকলকে নীনার পক্ষে জোট গড়া প্রয়োজন সে প্রেক্ষাপট উপস্থাপন করেন অনুষ্ঠানের অন্যতম হোস্ট পিপলএনটেক এর প্রতিষ্ঠাতা ও সি ই ও আবুবকর হানিফ। 

অপর হোস্ট সমাজকর্মী রেদওয়ান চৌধুরী ছাড়াও ড. নীনার পক্ষে সকলকে একযোগে কাজের উদাত্ত আহবান জানিয়ে বক্তব্য রাখেন ডেমক্র্যাট ওয়াহেদ হোসাইনী  এবং মোহাম্মাদ আলমগীর।  অনুষ্ঠানে নেতৃবৃন্দের মধ্যে ছিলেন মোহাম্মদ হোসাইন, মাজহারুল হক , প্রিয় লাল কর্মকার এবং ভয়েজ অব আমেরিকার বাংলা বিভাগের প্রধান রোকেয়া হায়দার।

আসছে ৩১ মার্চ দুপুরে নিউইয়র্ক সিটিতেও ড. নীনার তহবিল সংগ্রহের একটি অনুষ্ঠান হবে। ‘ফ্রেন্ডস অব নীনা’র ব্যানারে এ অনুষ্ঠানে সংশ্লিষ্ট সকলকে বিশেষভাবে আমন্ত্রণ জানানো হয়।

তথ্য:

বিভাগ:

প্রকাশ: মার্চ ৬, ২০১৮

প্রতিবেদক: প্রবাসীর দিগন্ত

সর্বমোট পড়েছেন: 399 জন

মন্তব্য: 0 টি