মালয়েশিয়া ইমিগ্রেশনের অভিযানে ৭ হাজার বাংলাদেশি সহ গ্রেফতার ২২ হাজার

শেখ সেকেন্দার আলী | নিজস্ব প্রতিবেদক : জুলাই ১০, ২০১৮
কঠোর অবস্থানে মালয়েশিয়া ইমিগ্রেশন বিভাগ । কোন প্রকার অবৈধ শ্রমিক এবং নিয়োগ দাতাদের সঙ্গে আপোস করা হবে না । যেকোন মূল্যেই হোক অবৈধদের আইনের আওতায় আনা হবে বলে জানালেন অভিবাসন বিভাগের প্রধান দাতুক শ্রী মোস্তফার আলী। গত জানুয়ারি থেকে ৭জুলাই পর্যন্ত প্রায় ৭হাজার বাংলাদেশি সহ প্রায় ২২ হাজার অবৈধ অভিবাসিদের গ্রেফতার করেছে ইমিগ্রেশন পুলিশ । জুন মাসে শেষ হয় বৈধ হওয়ার সুযোগ । আর জুলাই থেকে শুরু হয়েছে মেগা থ্রির নামে এই অভিযান ।গত কাল ৯ জুলাই ইমিগ্রেশন বিভাগের মহাপরিচালক দাতুক মোস্তফার আলী স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানান । ২০১৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হয় অবৈধ অভিবাসীদের বৈধকরণ প্রক্রিয়া। এরপর ১৬ সালের ১৫ আগস্ট নিবন্ধনের মেয়াদ বাড়িয়ে ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর শেষ হয়। পরবর্তীতে ২০১৮ সালের ১ জানুয়ারি থেকে সর্বশেষ সময় বাড়িয়ে চলতি বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত চলে নিবন্ধন প্রক্রিয়া।এ প্রক্রিয়া শেষ হতে না হতেই অবৈধদের জন্য ব্যাপক অনুসন্ধান শুরু করে ইমিগ্রেশন বিভাগ। ৩০ আগস্টের মধ্যে স্বেচ্ছায় দেশে ফেরত না গেলে জেল জরিমানার বিধান রয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট বিভাগ জানিয়েছে। মোস্তাফার আলী জানান, অবৈধ অভিবাসীদের ধরতে ব্যাপক অভিযান অব্যাহত থাকবে। এছাড়া যেসব মালিকরা অবৈধ অভিবাসীদের নিয়োগ দিয়েছেন বা পুনঃনিবন্ধন করায়নি তাদেরকেও গ্রেফতার করে নিয়ে আসা হবে।তিনি বলেন, দেশে অবৈধ অভিবাসীর স্রোত ঠেকাতে এই পদক্ষেপ নিতেই হচ্ছে। এ সময় ইমিগ্রেশন বিভাগের মহাপরিচালক আরও জানান, গত জানুয়ারির ১ তারিখ জুলাইয়ের ৭ তারিখ পর্যন্ত সাত হাজার চারশত চুয়াত্তর টি অভিযান চালিয়ে ৯১,৬৫০ জনকে গ্রেফতার করা হয় । কাগজপত্র যাচাই-বাছাই শেষে ২২,১২৬ জনকে বিভিন্ন দেশের শ্রমিকদের গ্রেফতার করে অভিবাসন বিভাগ । তিনি বলেন, এ পর্যন্ত ৫৮৫ জন মালিকের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এছাড়াও ৯ হাজার ৮৫৮ জন অবৈধ অভিবাসীকে বিচারের সম্মুখীন করা হয়েছে। বাকিদেরও শিগগিরই বিচার প্রক্রিয়া শুরু হবে।তিনি জানান, আটক হওয়া অভিবাসীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি রয়েছেন ইন্দোনেশিয়ান। প্রতিবেশী এই দেশটির ৭ হাজার ৩২৭ জন অবৈধ অভিবাসীকে আটক করা হয়েছে। এরপরই রয়েছে দক্ষিণ এশিয়ার দেশ বাংলাদেশ। ৬ মাসে ৪ হাজার ৪৮৩ জন বাংলাদেশিকে আটক করা হয়েছে। ২ হাজার ১৮৮ জন মিয়ানমারের নাগরিক। এবং বাকিরা ইন্ডিয়া ,ফিলিপাইন , ভিয়েতনাম এবং অন্যান্য দেশের নাগরিক । ​ ৩+১ এর মাধ্যমে যে কেউ আউটপাস সংগ্রহ করে যার যার দেশে যেতে পারবেন বলে জানিয়েছেন অভিবাসন বিভাগের প্রধান ডাতুক শ্রী মোস্তফার আলী । তিনি আরো জানান , আমরা যথেষ্ট ধৈর্যের সঙ্গে দীর্ঘ দিন যাবত অবৈধদের বৈধ হওয়ার সময় দিয়েছি । যারা এই রিহায়রিংয়ে প্রোগ্রামের আওতায় আসতে ব্যর্থ হয়েছে , তাদের সঙ্গে আর কোনো আপস করা হবে না । অবৈধদের যে কোনো মূল্যেই হোক গ্রেফতার করা হবে । ​

তথ্য:

বিভাগ:

প্রকাশ: জুলাই ১০, ২০১৮

প্রতিবেদক: শেখ সেকেন্দার আলী

সর্বমোট পড়েছেন: 442 জন

মন্তব্য: 0 টি