মালয়েশিয়ায় মাইগ্রেন্ট ফোরাম অব এশিয়ার আলোচনা সভা

আহমাদুল কবির | বিশেষ প্রতিবেদক : এপ্রিল ২৪, ২০১৮

মালয়েশিয়ায় মাইগ্রেন্ট ফোরাম অব এশিয়ার উদ্যোগে তিন দিন ব্যাপী আলোচনা সভা অনুষ্টিত হয়েছে। গত ২০ এপ্রিল মাইগ্রেন্ট ফোরাম অব এশিয়ার কার্যালয়ে শুরু হওয়া দক্ষিণ এশিয়ার শ্রমিকদের মৌলিক অধিকার আদায়ে করণীয় এবং সমস্যা ও সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনায় অংশ নেন বাংলাদেশ ও নেপালের সংসদ সদস্যরা ।
বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের সংসদ সদস্য মো: ইসরাফিল আলমের নেতৃত্বে জেবুন্নেছা আফরোজ এমপি, মো: ছলিম উদ্দিন তরফদার এমপি ও মো: আইনুদ্দিন এমপি এ আলোচনায় অংশ গ্রহণ করেন।

 
উদীয়মান অর্থনীতির দেশ মালয়েশিয়ায় কর্মরত বাংলাদেশি ও নেপালের কর্মীদের কাজের সম্ভাবনা ও সমস্যা বিষয় গুলো নিয়েই মাইগ্রেন্ট ফোরাম অব এশিয়ার এ আয়োজন
প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ জনগোষ্ঠীর বসবাস মালয়েশিয়ায়। উদীয়মান অর্থনীতির এই দেশে বাংলাদেশিদের রয়েছে যেমন অফুরন্ত সম্ভাবনা তেমনি রয়েছে বিশদ সমস্যাও। 


শ্রমিকদের চিকিৎসা ভাতা, ইন্স্যুরেন্স, সময়মত বেতন পরিশোধ, আইনি সহায়তা সহ তিনদিন ব্যাপী আলোচনায় উঠে আসে সমস্যা ও সম্ভাবনার কথা। দু দেশের প্রতিনিধি দল সরেজমিন বিভিন্ন ফ্যাক্টরি, কন্সট্রাকশন সাইডে গিয়ে যার যার দেশের শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলেন এবং সমস্যা গুলো শুনেছেন।
২য় দিনে শ্রমিকদের সমস্যা নিয়ে মালয়েশিয়ার বার কাউন্সিলের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে তারা আলোচনায় বসেন । প্রতিনিধি দলের নেতৃবৃন্দকে বার কাউন্সিলের নেতৃবৃন্দ আশ্বস্ত করেছেন, বিদেশি শ্রমিকদের ন্যায্য আদায়ে সরকারের  সংশ্লিষ্ট দপ্তরের সঙ্গে আলোচনা করে তাদের জটিলতা নিরসনে আইনি সহায়তা দেয়া হবে বলে জানালেন ইসরাফিল আলম এমপি। এর আগে শ্রমিকদের সমস্যা নিয়ে প্রবাসীদের সঙ্গেও আলোচনা করেন সংসদীয় প্রতিনিধি দল। 
এক প্রশ্নের জবাবে ইসরাফিল আলম বলেন, বিদেশে কোঠা ভিওিক কর্মী পাঠালে শ্রমিকদের মৌলিক অধিকার আদায়ে কাজ করা সম্ভব।  তিনি বলেন, মালয়েশিয়ার আইন অনুযায়ি বৈধ-অবৈধ সকল মাইগ্রেন্ট ওয়ারকারস ইন্ডষ্ট্রিয়াল দূর্ঘটনার জন্য ক্ষতিপূরণ পাওয়ার অধিকারী। সুপ্রীম কোর্ট বার কাউন্সিলের বৈঠকে অংশগ্রহণ করার সময় ,-সবাই যখন প্রশ্ন করলো বাংলাদেশের মাইগ্রেন্ট কষ্ট এত বেশি কেন এবং  ইথিকেল রিকোয়ারমেন্ট এর ক্ষেত্রে এত সমস্যা কেন? আমি বললাম মালয়েশিয়া সরকার বাংলাদেশের সুনির্দিষ্ট দশটি রিকুটিংএজেন্টকে মালয়েশিয়ায় জনশক্তি প্রেরণের জন্য নির্বাচন করেছে। সেইজন্য এই দশটি রিকুটিং এজেন্সীর একচেটিয়া ব্যবসাসায়িক মনোভাবের কারণেই নায্য অভিবাসী ব্যয় ও নৈতিক রিক্রোইটমেন্ট সঠিক প্রক্রিয়ায় প্রতিষ্ঠা করা বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না ।


ইসরাফিল আলম বলেন, মাইগ্রেন্ট ফোরাম এশিয়া (এম এফ এ)র মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে বিদেশি কর্মীদের সমস্যা স্বনাক্তকরন এবং সমাধানের জন্য প্রতিবেদন তৈরি করে  সংশ্লিষ্ট দপতরে প্রেরন। এমনকি জাতি সংঘেও এ প্রতিবেদন প্রেরণ করা হয়।
আমরা শ্রমিকদের সকল ধরনের সমস্যা উওরণে বাংলাদেশ এবং নেপাল দূতাবাসের কর্মকর্তাদের সঙ্গে ও আলোচনা করেছি। দক্ষিণ এশিয়ার দেশ গুলো শ্রমিক পাঠানোর ক্ষেত্রে সকল ধরনের সুযোগ সুবিধাদি নিয়েও আলোচনা হয়েছে। 
মিনিস্ট্রি অব এক্রপাট্রিয়েট ওয়েলফেয়ার এন্ড অভার্সিস এম্পলয়মেন্ট বাংলাদেশ পার্লামেন্ট মেম্বার মো: আইন উদ্দিন এমপি বলেন,  শ্রমিকদের অধিকার আদায়ে শেখ হাসিনার সরকার কাজ করে যাচ্ছে । তিনি বলেন, সরকারের পাশাপাশি সম্মিলিতভাবে শ্রমিকদের সমস্যার সমাধান সম্ভব। যা দুই দেশের সরকারের আলাপ-আলোচনা করেই সমাধান করতে হবে।’ 
আইন উদ্দিন বলেন, মালয়েশিয়ায় হাইকমিশনের পাশাপাশি এখানকার স্থানীয় বিভিন্ন ইউনিটির মাধ্যমেও কিছু সমস্যা সমাধান করা যায়। যেমনটা করছে নেপাল, কম্বোডিয়া ও ভিয়েতনাম। এ ক্ষেত্রে তারা অনেক সোচ্চার। আমাদেরও সোচ্ছার হতে হবে। এ প্রসঙ্গে তার সূর মেলালেন জেবুন্নেছা আফরোজ এমপি। তিনি বলেন, শ্রমিকদের কল্যাণে সরকারের পাশাপাশি সকল ভেদাভেদ ভূলে সকলকে কাজ করলে শ্রমিকদের সমস্যা সমাধান সম্ভব।
তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রসঙ্গ তুলে ধরে বলেন, আজকের উন্নত বাংলাদেশের সঙ্গে আগের বাংলাদেশের আকাশ-পাতাল পার্থক্য রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশকে সম্মানের জায়গায় নিয়ে এসেছেন। তাই সম্মানের জায়গা ধরে রাখার দায়িত্ব আমাদের সকলের।

তথ্য:

বিভাগ:

প্রকাশ: এপ্রিল ২৪, ২০১৮

প্রতিবেদক: আহমাদুল কবির

সর্বমোট পড়েছেন: 201 জন

মন্তব্য: 0 টি