লেবাননে যথাযোগ্য মর্যাদা পালিত হল "বিশ্ব মা দিবস"

নিজস্ব প্রতিবেদক : মার্চ ২১, ২০১৮

মো জুয়েল রানা:

সোহাগভরা মায়ের পরশ, সারা দেহে জড়িয়ে আছে আজো,

কোথায় মাগো লুকিয়ে থেকে, স্বপ্নপুরীর রাজকন্যা সাজো।

নিঃস্বার্থ মমতা, ভালোবাসার প্রতীক, মায়ামাখা শাসনের ছায়া, এ যেন মায়েরই বিকল্প রূপ। সন্তানের কাছে জগতের সবচেয়ে আপন, প্রিয় হচ্ছেন তার মা। জন্মের পর তিনিই কেবল নিজের স্বপ্ন দিয়ে তিল তিল করে বড় করে তোলেন তার নাড়ি ছেঁড়া ধনকে। গড়ে তোলেন আগামীর সম্ভাবনাময় একজন মানুষ হিসেবে। মায়ের ভালোবাসা একটি বিশেষ দিনের অভ্যন্তরে গণ্ডিবদ্ধ থাকে না কখনোই। তবুও বছরের একটি দিন এমন ভালোবাসা ঘটা করে পালন করলে দোষেরই বা কি!

আজ বিশ্ব মা দিবস। বিশ্ব মা দিবসের ইতিহাস শতবর্ষের পুরনো। যুক্তরাষ্ট্রে আনা জারভিস নামের এক নারী মায়েদের অনুপ্রাণিত করার মাধ্যমে দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে স্বাস্থ্য সচেতন করে তুলতে উদ্যোগী হয়েছিলেন। এ কাজের মধ্য দিয়ে তিনি মায়েদের কর্মদিবসের সূচনা করেন। ১৯০৫ সালে আনা জারভিস মারা গেলে তার মেয়ে আনা মারিয়া রিভস জারভিস মায়ের কাজকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য সচেষ্ট হন। ওই বছর তিনি তার সান ডে স্কুলে প্রথম এ দিনটি মাতৃদিবস হিসেবে পালন করেন।

আজ বিশ্ব মা দিবস। শত বছর আগে ১৯০৫ সালে যুক্তরাষ্ট্রের এক মা- আনা মারিয়া রিভস জার্ভিস তার সানডে স্কুলে প্রথম এ দিনটি মাতৃদিবস হিসেবে চালু করেন। ১৯১৪ সালের ৮ মে মার্কিন কংগ্রেস মে মাসের দ্বিতীয় রবিবারকে ‘মা দিবস’ হিসাবে ঘোষণা করে। এরই ধারাবাহিকতায় দিবসটি এখন বিশ্বের এক শতের বেশী দেশে ‘বিশ্ব মা দিবস’-এর মর্যাদায় পালিত হয়। তবে বেশিরভাগ দেশে মে মাসের দ্বিতীয় রোববার দিনটি পালিত হয়। উদযাপনের জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে বড়দিন এবং ভালোবাসা দিবসের পর মা দিবসের অবস্থান। সাধারণত সাদা কারনেশন ফুলকে মা দিবসের প্রতীক বিবেচনা করা হয়।

এই দিনে সন্তানরা ফুল এবং নানা সামগ্রী উপহার দিয়ে এবং বাসায় কিংবা রেস্টুরেন্টে মায়ের সাথে খাবার খেয়ে, অনেকেই ছুটি নিয়ে মায়ের একান্ত সান্নিধ্যে দিনটি কাটায় । মাকে শ্রদ্ধা আর ভালবাসা দেখাতে নির্দিষ্ট দিনক্ষণ ঠিক করে নেয়ার যুক্তি অনেকের কাছেই । সে ভাবে গ্রহণযোগ্য না হলেও অনেকেই মনে করেন মাকে সম্মান দেখাতে, তাকে গভীরভাবে মাকে করতে আন্তর্জাতিক মা দিবসের গুরুত্ব রয়েছে। মাকে স্মরণ করে জগদ্বিখ্যাত মনীষী আব্রাহাম লিংকন বলেছিলেন, আমি যা কিছু পেয়েছি, যা কিছু হয়েছি, অথবা যা হতে আশা কর তার জন্য আমি আমার মায়ের কাছে ঋণী। জগতে মায়ের মতো এমন আপনজন আর কে আছে! তাই প্রতি বছর এই দিনটি স্মরণ করে দেয় প্রিয় মায়ের মর্যাদার।

বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন সময় ‘মা দিবস’ পালিত হতো বিভিন্ন দৃষ্টিকোন থেকে। রোমানরা পালন করতেন ১৫ মার্চ থেকে ১৮ মার্চের মধ্যে, তারা দিনটিকে উৎসর্গ করেছিলেন ‘জুনো’র প্রতি। ষোল’শ শতাব্দী থেকে এই দিনটি যুক্তরাজ্যেও উদযাপন করা হয় ‘মাদারিং সানডে’ হিসেবে। ইস্টার সানডের ঠিক তিন সপ্তাহ আগের রোববারে এটি পালন করেন তারা। নরওয়েতে ফেব্রুয়ারির দ্বিতীয় রোববারে, সৌদি আরব, বাহরাইন, মিশর, লেবাননে বসন্তের প্রথম দিন অর্থ্যাৎ ২১শে মার্চে এই দিনটি উদযাপিত হয়। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ভিন্ন ভিন্ন তারিখে দিনটি পালন করা হয়। ফেব্রুয়ারির দ্বিতীয় রোববার নরওয়েতে, মার্চের চতুর্থ রোববার আয়ারল্যান্ড, নাইজেরিয়া ও যুক্তরাজ্যে। আর বাংলাদেশে মে মাসের দ্বিতীয় রোববার। অন্যান্য দেশের মত লেবাননে ও প্রবাসী বাংলাদেশিরা "মা দিবস" যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন করবে।

লেবানন প্রবাসী শ্রমিক ইউনিয়ন সংগঠনের সভাপতি আবদূল করিম মহিলা সম্পাদিকা অজান্তা ইসলাম খাদিজা প্রবাসীর দিগন্তকে বলেন, পৃথিবীতে মায়ের তুলনা কারও সাথে হয়না। মা শুধুই মা আমরা মনে করি মাকে ভাল বাসতে কোন দিবস প্রয়োজন পড়ে না। প্রতিটা মিনিটেই গর্ভধারিনী মাকে আমরা ভালবাসতে পারি। তাই বিশ্ব "মা দিবসে" সারা বিশ্বের ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা প্রবাসী বাংলাদেশিরা শপথ করি। মাকে আর অবহেলা না। তাদেরকে বুকভরা ভালবাসা আর সহানুভূতি থেকে বঞ্চিত না করে, তাদেরকে বুকে আকঁড়ে ধরে রাখি। লেবানন প্রবাসী শ্রমিক ইউনিয়নে পক্ষ থেকে প্রবাসী বাংলাদেশিদের অনুরোধ করেন, মা দিবসে যেন সকলে মাকে টেলিফোনের মাধ্যমে জনম দূখিনী মাকে একটু ভালবাসা দেন। প্রবাসী ভাই-বোন সংগঠনে সভাপতি আতাউর রহমান প্রবাসীর দিগন্তকে বলেন, ছোট্র একটি শব্দ "মা" এই মায়ের মত আপন আর পৃথিবীতে কেউ হতে পারে না। বিশ্বের মধ্যে যত দিবসই থাকনা কেন সব দিবসের উপরে "মা দিবস" বলে আমি মনে করি।

আজ বিশ্ব মা দিবস এই মা দিবসে আমরা প্রবাসী ভাই-বোন সংগঠনের পক্ষ বিশ্বের সকল মা জাতিকে স্যালুট জানাই। কারণ এই মায়েরা না থাকলে আমরা দুনিয়াতে আসতে পারতাম না। দুনিয়ার আলো বাতাস দেখতে পারতাম না। তাই আমি মনে করি সকল সন্তানের একান্ত কাম্য মাকে ভালবাসা দিয়ে সারাজীবন মায়ের পাশে থাকা।

তথ্য:

বিভাগ:

প্রকাশ: মার্চ ২১, ২০১৮

প্রতিবেদক:

সর্বমোট পড়েছেন: 215 জন

মন্তব্য: 0 টি

বিজ্ঞাপন জন্য স্থান
(আপনার বিজ্ঞাপনের জন্য আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন)