শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে : লেবাননে বাংলাদেশ রাষ্ট্রদূত

নিজস্ব প্রতিবেদক : এপ্রিল ৪, ২০১৮

মো জুয়েল রানা: বাংলাদেশ সরকারের নিযুক্ত লেবাননে বাংলাদেশ দূতাবাসের মান্যবর রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোতালেব সরকার বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ স্বল্প উন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি পেয়েছে। এছাড়াও বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটসহ দশটি মেঘা প্রকল্পের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, অচিরেই বাংলাদেশ একটি মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তরিত হবে। এজন্য দল, মত, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সবাইকে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান করেন তিনি।

গতকাল রোববার (১লা এপ্রিল) লাইলাকি, হোটেল আল কামাল অডিটোরিয়ামে লেবানন আ'লীগ আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

নব নির্বাচিত কমিটির উদ্দেশ্যে রাষ্ট্রদূত বলেন, কেউ কেউ দায়িত্ব পেয়ে নিজেদেরকে অনেক বড় মনে করেন। আসলে দায়িত্ব মানুষের জন্য অনেক কর্তব্য নিয়ে আসে। সেই কর্তব্যগুলো যদি তিনি ঠিকমতো পালন করতে পারেন, তাহলেই তিনি যে দায়িত্ব পেলেন সেটির সুষ্ঠু ব্যবহার হবে। আমি আশা করবো আপনারা সেই দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করবেন।

রাষ্ট্রদূত বলেন, লেবাননে আ'লীগের অন্য কোন কমিটিকে আমরা আর স্বীকৃতি দেবো না। যদি কেউ আলাদাভাবে কমিটি করতে চান এক্ষেত্রে আমার কোন আপত্তি নেই। তবে 'ব্রেকেটে' সভাপতি/সম্পাদকের নাম দিয়ে পরিচয় দেবেন।

তিনি বলেন, অতিতে লেবাননে আ'লীগের ২/৩টা কমিটি ছিল। আমরা তাদেরকে বুঝিয়ে শুনিয়ে একটি করার জন্য অনুরোধ করি। এক্ষেত্রে বাবুল মুন্সী সভাপতি এবং মশিউর রহমান টিটু সাধারণ সম্পাদক ব্যতিত আ'লীগের অন্য কোন কমিটিকে আমরা একসেপ্ট করবো না। কারণ, বাংলাদেশ কমিউনিটির মধ্যে আমরা কোন বিভাজন দেখতে চাই না বলেই এমন সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছি। এ সময় নব নির্বাচিত কমিটিকে তিনি স্বীকৃতি প্রদান করে, নব নির্বাচিত কমিটির সবাইকে তিনি অভিনন্দন জানান।

স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রদূত বলেন, আজকে অত্যন্ত গৌরবের একটি দিন। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের কালো রাত্রিতে পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর অবসাদ আক্রমনের মাধ্যমে যে স্বাধীনতা যুদ্ধের সূত্রপাত হয়েছিল, একই বছরের ১৬ ডিসেম্বর সেই পাক বাহিনীর অপমানজনক আত্মসমর্পণের মধ্য দিয়ে অর্জিত হয়েছিল আমাদের বিজয়। এবং আমরা একটি স্বাধীন সার্বভৌম দেশ হিসেবে পৃথিবীর মানচিত্রে আত্মপ্রকাশ করেছিলাম। তাই আজকের আলোচনা সভার শুরুতেই স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে আমি গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি। আরো শ্রদ্ধার স্মরণ করছি ত্রিশ লক্ষ শহীদ এবং দুই লক্ষ মা বোনদের। যাদের ইজ্জতের বিনিময়ে আমরা অর্জন করেছি আমাদের স্বাধীনতা।

লেবানন প্রবাসী কমিউনিটি সম্পর্কে রাষ্ট্রদূত বলেন, পূর্বেকার কমিউনিটির তুলনায় বর্তমান কমিউনিটি অনেক ভাল অবস্থানে রয়েছে। তরপরেও আমাদের মাঝে কিছু সংখ্যক লোক রয়েছেন যারা সামনে এক ধরনের কথা আর পিছনে অন্য ধরনের কথা বলে বিভ্রান্ত করছেন। আসলে ব্যক্তি স্বার্থের জন্যই তারা এমটি করে থাকেন। এসব কথা বলে কমিউনিটিকে বিঘ্নিত না করতে এবং এ পথ থেকে সরে আসতে তিনি সবাইকে অনুরোধ করেন।

একইসাথে দূতাসের কর্মকর্তাদের মাঝেও বিভাজন সৃষ্টি করতে কিছু লোক বিভিন্নভাবে দূতাবাসের কর্মকর্তাদের প্ররোচিত করার চেষ্টা করছে। তিনি হুশিয়ারী উচ্চারণ করে বলেন, আপনাদের প্রত্যেকটি কল রেকর্ড করা আছে। সময়ে প্রমাণ সহকারে সবকিছু জনসম্মুখে উন্মোচন করা হবে। এসব কাজ থেকে সরে আসতে সকলকে তিনি অনুরোধ করেন।

প্রবাসীদের উদ্দেশ্যে রাষ্ট্রদূত বলেন, এখন আর বিনা জরিমানায় দেশে যাওয়ার কোন সুযোগ নেই। তবে জরিমানা দিয়ে দেশে যেতে পারবেন। এক্ষেত্রে দূতাবাস থেকে ফরম নিয়ে তা পূরণ করে জরিমানাসহ দূতাবাসে জমা দিতে হবে। পাশাপাশি যাদের আকামা সমস্যা আছে এসব সমস্যা নিরসনে দূতাবাস কাজ করে যাচ্ছে।

অসাধু দালালদের বিষয়ে রাষ্ট্রদূত বলেন, দালালরা আমার শত্রু নয়। নির্দিষ্ট পরিমান টাকা থেকে বেশি অর্থাৎ ৭/৮ হাজার ডলার নিলে এবং অকারণে কাউকে দেশে পাঠাতে চাইলে তাদেরকে ছাড় দেওয়া হবে না। কথিত স্বামী-স্ত্রী সম্পর্কে যারা এদেশে বসবাস করছেন। তাদেরকে এ পথ থেকে ফিরে আসতে তিনি বিনীতভাবে অনুরোধ করেন।

অনুষ্ঠান শুরুতে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত ও জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়। এ সময় শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

উক্ত অনুষ্ঠানে আ'লীগের পক্ষ থেকে নব নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক প্রধান অতিথি রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোতালেব সরকারকে প্রবাসী বাংলাদেশীদের কল্যাণে ও বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতি সরূপ "শ্রেষ্ঠ জনবান্ধব রাষ্ট্রদূত" উল্লেখ করে একটি ক্রেস্ট উপহার তুলে দেন। পরে রাষ্ট্রদূত এবং কাউন্সেলরকে আ'লীগ এবং বিভিন্ন শাখা কমিটির নেতৃবৃন্দরা ফুল দিয়ে বরন করেন।

লেবানন আওয়ামী লীগের নব নির্বাচিত সভাপতি বাবুল মুন্সীর সভাপতিত্বে এবং নব নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক ও সহ সভাপতি রুবেল আহমেদ এর যৌথ পরিচালনায় এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোতালেব সরকার ও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দূতালয় প্রধান (কাউন্সেলর) সায়েম আহমেদ এবং দূতাবাসের বিভিন্ন কর্মকর্তাগণ।

এছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন, লেবানন আ'লীগের আজীবন সদস্য আবুল বাশার প্রধান, উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য ইসমাইল চৌঃ আকরাম, আতিকুর রহমান, আজাদ মিয়া, নব নির্বাচিত সিনিঃ সহ-সভাপতি সুফিয়া আক্তার বেবি, সহ সভাপতি রুবেল আহমেদ, মোহাম্মদ আলী, মানিক সরকার, বাবুল মিয়া, শেখ ফাইজুল ইসলাম, আনোয়ার জোয়াদ্দার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন, প্রচার সম্পাদক মহসীন মৃধা, মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ও পুনর্বাসন সোসাইটির সভাপতি সৈয়দ আমির হোসেন, সেচ্ছাসেবী সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ইমতিয়াজ ও সিনিয়র সহ-সভাপতি আজাদ মিয়া প্রমুখ।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বক্তারা বলেন, লেবাননে প্রবাসী বাংলাদেশীদের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানকল্পে জনবান্ধব রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোতালেব সরকার যে অগ্রণী ভূমিকা রেখেছে। তা লেবাননে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশীরা কোনদিন ভুলবে না। পাশাপাশি শেখ হাসিনা সরকারের হাতকে শক্তিশালী করতে নৌকায় ভোট দিয়ে আবারও জয়যুক্ত করতে সকলকে অনুরোধ করেন।

নব নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান টিটু বক্তৃতাকালে, আবেগে কেঁদে ফেলেন তিনি। এ কান্না ভালবাসার কান্না, এ কান্না খুশির কান্না। কান্নাজড়িত কণ্ঠে তিনি বলেন, আপনারা আজ আমায় যে সম্মান দিলেন দোয়া করবেন আমি যেন পূর্ণ বিশ্বাসের সহিত আপনাদের সম্মান ধরে রাখতে পারি। আপনাদের এ ভালবাসার কাছে আমি চিরঋণী। সবশেষে সমাপনী বক্তব্য রাখেন নব নির্বাচিত সভাপতি বাবুল মুন্সী।

অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে দেশীয় শিল্পীদের গানেরগলায় পুরো অডিটোরিয়াম মাতিয়ে তুলেন। সবশেষে প্রীতিভোজের মাধ্যমে অনুষ্ঠানটির সমাপ্তি ঘটে।

উল্লেখ্য, নব নির্বাচিত কমিটির সভাপতি, সিনিয়র সহ-সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদকসহ মোট তিন জনের নাম প্রকাশ করা হয়েছে। আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটির তালিকা প্রকাশ করার কথা জানানো হয়।

তথ্য:

বিভাগ:

প্রকাশ: এপ্রিল ৪, ২০১৮

প্রতিবেদক:

সর্বমোট পড়েছেন: 192 জন

মন্তব্য: 0 টি

বিজ্ঞাপন জন্য স্থান
(আপনার বিজ্ঞাপনের জন্য আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন)